বাঙ্গালী জাতীর উন্নতির প্রধান অন্তরায় আত্মবিশ্বাস এর অভাব……

আমরা কি কখনো ভেবে দেখেছি স্বাধীনতার এত বছর পরও আমরা উন্নয়নশীল রাষ্ট্র কেন?? যেখানে আমাদের আসে পাশে অনেক উন্নত দেশ। আছে যাদের স্বাধীনতা হয়েছে আমাদের অনেক পরে। কিন্তু তাদের উন্নত রাষ্ট্র বলা হয়। পৃথিবী তে এমন অনেক দেশ আছে যাদের স্বাধীনতার বয়স ২০ বছর। কিন্তু এই ২০ বছর বয়সে তারা ও আমাদের থেকে উন্নত। কি পার্থক্য রয়েছে তাদের এবং আমাদের মধ্যে ?? কেন তারা উন্নতির দৌড়ে আমাদের থেকে এগিয়ে। কেউ বলবেন আমাদের সরকার আমাদের দিকে দেখে না। কেউ বলবেন শিক্ষাগত দিক থেকে আমরা উন্নত না, আসলে কি তাই ? আরে ভাই সমস্যা আপনার মধ্যে, অন্যকে দোষ দিয়ে লাভ কি? নিজে ভালো তো জগত ভালো। বাঙ্গালী জাতীর উন্নতির প্রধান অন্তরায় আত্মবিশ্বাস এর অভাব। কিভাবে ? আসুন তাহলে দেখি ….

আমরা কি কখনো ভেবে দেখেছি যে আমরা নতুন কোন জিনিস কে স্বাগত জানাতে ভয় পাই ? আমরা একেবারে নতুন যার সম্পর্কে আমাদের কোন ধারনাই নাই সেটিকে নিয়ে চিন্তা করতে ভয় পাই ? আমার তো তাই মনে হয়। আমার ভুল হলে ধরিয়ে দিবেন। আসুন এই বিষয়টি নিয়ে ব্যাবচ্ছেদ করি।

আমি অনেক দিন থেকে খুঁজছিলাম কেন আমাদের দেশে নতুন কিছু উদ্ভব হয় না? বাঙ্গালী জাতীর উন্নতির প্রধান অন্তরায় কি, কেন আমাদের ছেলেমেয়েরা বাইরে গিয়ে অন্য রাষ্ট্রের জন্য new invention করছে আমরা পারছি না, সমস্যা কোথায় ? অনেকে বলেছেন রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠ পোষকতার অভাব। অনেকে বলেছেন সরকার টাকা দেয় না। কিন্তু আমরা কি ভেবে দেখেছি কেন দেয় না ? কেউ এই কেন এর perfect উত্তর দিতে পারবেন না। উদাহরণ দেই আমাদের দেশে উৎপাদিত পণ্য যা বিদেশে যাচ্ছে তার কত শতাংশ আমরা ব্যবহার করছি? অনেকে বলবেন সেগুলির দাম বেশি তাই আমরা ব্যবহার করতে পারি না, আসলে কি তাই? কিন্তু সেই পণ্য যখন Made by USA শুধু এই tag টা লাগিয়ে আমাদের দেশে আসে তখন তো store গুলোতে আসার ৩/৪ দিন পরে আর খুঁজে পাওয়া যায় না। Stock out হয়ে যায়।

এর একমাত্র কারণ আমাদের আত্মবিশ্বাস এর অভাব এবং পরনির্ভরশীলতা।  আমরা বাহিরের দেশের রীতি নীতি follow করতে এত বেশি পছন্দ করি। যে নতুন কোন পণ্য বা IDEA আমাদের দেশে আগে তৈরি হলে আমাদের দেশবাসী সেটা কে use করতে চায় না। যদি আমরা পরীক্ষা না করি সরকার কেন টাকা দিবে? ওই জিনিসের জন্য? আমরা যতক্ষণ না পর্যন্ত দেখি, যে অমুক দেশ এইটা Use করছে, তমুক দেশ এইটা Use করছে ততক্ষণ আমরা ওই জিনিসটার প্রয়োজনীয়তা বুঝিনা। অথচ দেখা যাবে, এই একই IDEA আমাদের দেশের কোন এক কোনায়, কোন যুবক অনেক আগে উদ্ভাবন করেছিলো। কিন্তু সেটাকে সবাই অপ্রয়োজনীয় বলে ফেলে দিয়েছে।

আমাদের সমস্যা হলো নতুন কিছুকে আমরা স্বাগত জানাতে পারিনা। অথচ এই জিনিসটাই আমরা স্বাগত জানাই দেশের বাইরে গিয়ে অন্য দেশে। প্রথমে যখন আমাদের সামনে আসে তখন আমরা বাঙ্গালীরা এটার দোষ খুঁজতে উঠেপড়ে লাগি। পরে যখন দেখি যে এটা অন্য দেশের মানুষ ব্যবহার করছে তখন আবার সেই দেশে যাই same জিনিসটার ব্যবহার খুঁজতে। আজব আমরা!!!

আমরা traditional system কে আঁকড়ে ধরে রাখতে এতো বেশি ভালবাসি যে সেই system পচে গোলে পড়ার পরও আমরা আঁকড়ে বসে থাকি। যেমন আমাদের দেশে প্রতি বছর কিছু কিছু জায়গায় ফসলের প্রচুর পরিমাণে ফলন হয়, যেমন কখনো আলু, আম, সবজী এতো বেশি ফলে যে পচে যায় কেউ খায় না আবার অন্য season এ সেই জিনিসটির দাম বাড়ে যার কারণ তখন সেটা আর থাকে না। কেন? আমরা কি যখন বেশি ফলন হয় তখন সেটাকে presearve করে রাখতে পারি না? অনেকে বলবে রাখা হয় কিন্তু সব জিনিসের ১টা মেয়াদ থাকে। আমি জানি, আরে ভাই আমাদের preserve আস্ত রাখার দরকার কি? আমরা traditional ভাবে কেন চিন্তা করবো? Out of the box কি চিন্তা করা যায় না ? অন্য ভাবেও তো রাখা যায়।

যেমন আমাদের অভ্যাস হলো আলু আমরা cold storage গুলোতে আস্ত রাখি কিন্তু ফলন যখন ভালো হয় তখন cold storage গুলো ভরে যায় বাকি গুলো পচে। কেন আমরা কি আলু কোন ভাবে mash করে বোতল যাত করে রাখতে পারিনা ? পারি কিন্তু কেন রাখিনা ? সমস্যা কোথায় ? আছে বড় সমস্যা আছে সিদ্ধ করে আমরা বাসায় আলু ভর্তা খাইতে পারি কিন্তু কোন কোম্পানি যদি ওই আলু ভর্তা করে packet করে আমাদের দেয় তাহলে আমরা কতো দোষ বের করবো। তখন তার হবে নানান দোষ। এখানেও সমস্যা হলো ঐ যে আত্মবিশ্বাস এর অভাব। আবার same জিনিস আমরা বিদেশে গিয়ে বিদেশের super store গুলো থেকে কিনে বাসায় নিয়ে গিয়ে বলি এরা life টাকে কত easy করেছে।

সুতরাং আমাদের উন্নত হতে গেলে নিজেদের আত্মবিশ্বাস রাখতে হবে নতুন কিছু কে except করার মানসিকতা থাকতে হবে না হলে  বাঙ্গালী সব সময় ওই উন্নয়নশীল রাষ্ট্রই থেকে যাবে উন্নত আর হবে না।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *